হবিগঞ্জের কৃতি সন্তান জহিরুল হক শাকিলের পিএইচডি সনদ লাভ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জের কৃতি সন্তান ও জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক কমনওয়েলথ স্কলার জহিরুল হক শাকিল বিশ্বের সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব ওরিয়েন্টাল এন্ড আফ্রিকান স্টাডিজ (সোয়াস) গ্রাজুয়েশন প্রোগ্রামে আনুষ্ঠানিকভাবে পিএইচডি সনদ গ্রহন করেছেন। গত ২৫ জুলাই লন্ডনের ইন্সটিটউট অব এডুকেশন ক্যাম্পাসে রয়াল আফ্রিকান সোসাইটির চেয়ারপার্সন, ইউনাইটেড নেশন্স এসোসিয়েশন ইউকের ভাইস প্রেসিডেন্ট যেইনাব বাদাবির সভাপতিত্বে সোয়াসের গ্রাজুয়েশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়। গ্রাজুয়েটদের স্বাগত জানান সোয়াসের ডিরেক্টর বেরনেস ভেলেরি আমোস ও গ্রাজুয়েটদের উপস্থাপন করেন নেভতেজ কে পিউরেওয়াল ও প্রফেসর স্টিফেন পিএইচডি সনদ
চান ওবিই। বক্তৃতা করেন ইউনেস্কোর বিশেষ দূত, জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিধি ও প্রেসিডেন্ট ওবামার আর্টস এন্ড উইমিনিটিস কমিটির সদস্য ফরেস্ট উইটেকার। জহিরুল হক শাকিল সোয়াসের ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগ থেকে বিরল কৃতিত্বের সাথে গত মার্চ মাসে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি যুক্তরাজ্য সরকারের কমনওয়েলথ স্কলারশীপ নিয়ে ২০১২ সাল থেকে স্কুল অব ওরিয়েন্টাল এন্ড আফ্রিকান স্টাডিজে পিএইচডি গবেষক হিসেবে অধ্যয়ন করেন। তার থিসিসের শিরোনাম ছিল ‘মারজিনালাইজেশন এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ডিগ্রেডেশন ঃ দ্য কেস অব বাংলাদেশ।’ তার গবেষনা তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন সোয়াসের ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক, সেন্টার ফর ওয়াটার এন্ড ডেভেলপমেন্ট এবং লন্ডন ইন্টারন্যাশনাল ডেভলপমেন্ট সেন্টার এর ডিরেক্টর ড. পিটার পি মলিঙ্গা। সহ-তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন সোয়াস’র ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের তৎকালীন বিভাগীয় প্রধান ড. লরা হেম্মান্ড এবং একই প্রতিষ্ঠানের ফোর্সড মাইগেশনের সিনিয়র লেকচারার ড. তানিয়া কায়সার। হবিগঞ্জ শহরের শায়েস্তানগর আবাসিক এলাকার বিশিষ্ঠ শিক্ষক হবিগঞ্জ বিতর্ক পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ জবরু মিয়া ও গৃহিনী আলহাজ্ব মোছাঃ রাবেয়া খাতুনের প্রথম সন্তান ড. জহিরুল হক শাকিল তার শিক্ষাজীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে অসমান্য কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখেন। তিনি ১৯৯৩ সালে শহরের জে কে এন্ড এইচ কে হাইস্কুল থেকে স্টারমার্কসহ প্রথম বিভাগে এসএসসি ও ১৯৯৫ সালে বৃন্দাবন সরকারী কলেজ এর মানবিক বিভাগ থেকে হবিগঞ্জ জেলায় সর্বোচ্চ নম্বর নিয়ে প্রথম বিভাগে এইচএসসি পাস করেন। পরে ভর্তি হন সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পলিটিক্যাল স্টাডিজ এন্ড পাবলিক এ্যাফেয়ার্স বিভাগে। সেখানে তিনি বিরল ফলাফল করেন। যা আজ অবধি রেকর্ড হয়ে আছে। তিনি বিএসএস অনার্সে ডিস্টিংশনসহ সব্বোর্চ সিজিপিএ অর্জন করেন। তার সিজিপিএ শুধু পলিটিক্যাল স্টাডিজ এন্ড পাবলিক এ্যাফেয়ার্স বিভাগে নয় সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ এবং সমগ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে সর্বোচ্চ ছিল। এজন্য তিনি চ্যান্সেলর গোল্ড মেডেল বা প্রেসিডেন্ট পদক, ভাইস-চ্যান্সেলর মেডেল ও ইউনিভার্সিটি বুক মেডেল অর্জন করেন। একই বিভাগ থেকে মাস্টার্স লেভেলেও ডিস্টিংশনসহ বিভাগ ও অনুষদে সর্বোচ্চ সিজিপিএ অর্জন করেন। এজন্য তিনি ভাইস-চ্যান্সেলর মেডেল ও ইউনিভার্সিটি বুক মেডেলে সম্মানিত হন। শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন সময়ে তিনি বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন এওয়ার্ড লাভ করেন। ২০০৪ সালে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পলিটিক্যাল স্টাডিজ এন্ড পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশন বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান ও ২০০৬ সালে পলিটিক্যাল স্টাডিজ বিভাগে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। ২০১৪ সালে পদোন্নতি পান সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *