বানিয়াচংয়ে শিশু বলৎকারের অভিযোগে মেম্বারের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার, বানিয়াচং থেকে ॥ চতুর্থ শ্রেণীর স্কুল ছাত্রকে বলৎকারের চেষ্টাকারী ও অসামাজিক কাজে জড়িত থাকার দায়ে একাধিকবার কারাবরনকারী বানিয়াচং ২ নং ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড মেম্বার জয়নাল আবেদীন বিল্লালের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত রবিবার সকাল সাড়ে ১১টায় বিল্লাল মেম্বারের শাস্তির দাবিতে উপজেলা সদরের দোকানটুলা, তোপখানা ও সৈদরটুলা এলাকার শিশু বলৎকারের শতশত নারী-পুরুষ ও যৌন হয়রানির শিকার তোপখানা প্রাইমারী বিদ্যালয়ের জনৈক ছাত্রের সহপাঠিরা মিছিল সহকারে বড়বাজার সাবরেজিষ্টার অফিসের সামনে ও পরে উপজেলা পরিষদের সামনে এবং সর্বশেষ থানা চত্তরের সামনে মানব বন্ধন করেন। এতে উপস্থিত ছিলেন দোকানটুলা মহল্লার মিয়া হোসেন, হামদু মিয়া ও সিজিল মিয়া, সৈদরটুলার রুস্তম মিয়া, সাগর মিয়া, মোফাজ্জল, তোপখানা মহল্লার সহিবুর, রুবেল, তামিম, ফরহাদ, বদরুল, সাহাব উদ্দিন। নারীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, রীনা, মনোয়ারা, পারভীন লালমতি ও ওই ছাত্রের মা ফাতেমা। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন হয়রানির শিকার স্কুল ছাত্রের সহপাঠিসহ এলাকার শত শত নারী-পুরুষ। উল্লেখ্য, গত ৬ জুলাই শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে তোপখানা মহল্লার এক ব্যক্তির বাঁশঝাড়ে নিয়ে শিশুকে বলৎকারের চেষ্টা চালায় বিল্লাল। এ ঘটনায় শিশুর পিতা দোকানটুলা মহল্লার আমির আলী গত মঙ্গলবার বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগটি থানা প্রশাসনের নিকট প্রেরন করেন ইউএনও। অভিযোগে জানা যায়, উঠতি বয়সী ছেলেদেরকে যৌন হয়রানি করা বিল্লালের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। ২০১২ সালে তোপখানা এলাকার আরেক শিশুকে বলৎকার করেছিলেন তিনি। ওই মামলায় বিল্লাল ৬ মাস জেল খেটেছে। লিখিত অভিযোগে বলা হয়, পাশের বাড়ির আমির আলীর শিশু পুত্রকে সুযোগ পেলেই চকলেট ও বিস্কুটসহ লোভনীয় খাবার দিয়ে আপত্তিকর কাজে লিপ্ত হওয়ার প্রস্তাব দেয় বিল্লাল। শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে ওই শিশু বাড়ির পাশের দোকান ঘরে যায়। দোকান থেকে জিনিস কিনে ফেরার পথে শিশুকে ফুসলিয়ে পাশের বাঁশঝারে নেয়। এ সময় শিশুকে বলৎকারে চেষ্টা করা হয়। পরে শিশুটি ঘরে এসে অভিভাবকদের ঘটনাটি জানালে অভিভাবকরা স্থানীয় সর্দারসহ পঞ্চায়েত ব্যক্তিদের নিকট ঘটনার কথা জানান। বিষয়টি সামাজিক সালিশ বিচারের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়ে প্রশাসনের নিকট অভিযোগ দায়েরর পরামর্শ দেন মুরুব্বিয়ানরা। কিন্তু অভিযোগ দায়েরের দুই সপ্তাহ পার হলেও বিল্লাল মেম্বারের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি এ অভিযোগ এনে এলাকাবাসী মানবন্ধন করেন। মানববন্ধনে অবিলম্বে বিল্লালকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি করা হয়। অন্যথায় কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দেয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *