হবিগঞ্জে বর্ণাঢ্য আয়োজনে পহেলা বৈশাখ পালিত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জে বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা, নব সূর্য্যকে বরণ, আলোচনা সভা, র‌্যালী, সঙ্গীত, নৃত্যানুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বর্ষবরণ পালিত হয়েছে। ‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো’ এ স্লোগান ধারণ করে বাঙালির সবচেয়ে বড় উৎসব পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে জেলার সর্বত্র মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হয়। বাংলা বর্ষপঞ্জির প্রথম দিন শনিবার সকালে শহরে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়। শোভাযাত্রা শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এতে উপস্থিত ছিলেন এমপি এডভোকেট আবু জাহির, জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবির মুরাদ, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক সফিউল আলম, পুলিশ সুপার হায়াতুন নবী, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান শহীদ উদ্দিন চৌধুরীসহ সর্বস্তরের নেতৃবৃন্দ। এর আগে ভোরে স্থানীয় শিরিষতলার লন টেনিস মাঠে বর্ণমালা খেলাঘর নব সূর্য্যকে বরণ করে। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবিরের নেতৃত্বে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়।বাহুবল ঃ বাহুবলে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রার মাধ্যমে বর্ষবরণ উদযাপিত হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চত্ত্বর থেকে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা শুরু হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত আনন্দ শোভাযাত্রায় নানা ধরণের প্রতিকী শিল্পকর্ম বহন করা হয়। প্রত্যেকের হাতে ও মাথায় বাঙালি সংস্কৃতির পরিচয়বাহী বিভিন্ন উপকরণ, রঙ-বেরঙের নানা প্রাণীর প্রতিকৃতি শোভা পায়। বাঙালি সংস্কৃতির পরিচয়বাহী ঘোড়া, হাতি, পালকি ও বিশাল মাছ প্রতিকৃতি ছিল চোখে পড়ার মত। শোভাযাত্রায় বাহুবল কলেজ, দীননাথ ইনস্টিটিউশন সাতকাপন মডেল হাই স্কুল, ছদরুল হোসেন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কিশলয় জুনিয়র হাই স্কুল, সৃজন বিদ্যাপীঠ, বাহুবল আনন্দ নিকেতন, গ্রীণ প্রার্ক স্কুল এন্ড কলেজ, বাহুবল আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষকম-লী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। তাছাড়া উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। দিনব্যাপি আয়োজনের মধ্যে ছিল বৈশাখী মেলা ও পান্তা উৎসব, গ্রাম বাংলার চিরাচরিত খেলা তৈলাক্ত গাছ বেয়ে উপরে উঠা, বালিশ খেলা ও ভলিবল খেলা। দিনব্যাপী আয়োজিত খেলাধূলায় উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হাই ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জসীম উদ্দিনসহ জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, পুলিশ, সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী, রাজনীতিবিদ ও সুশিল সমাজ অংশগ্রহণ করেন। লাখাই ঃ উৎসব মুখর পরিবেশ আর বর্ণাঢ্য আয়োজনে লাখাইয়ে উদযাপিত হয়েছে বর্ষবরন। দিনব্যাপী ব্যাপক কর্মসুচী গ্রহণ করে উপজেলা প্রশাসন। দিবসের শুরুতেই সকালে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ ওবায়েদুর রহমানের নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন হ্যালিপ্যাঠ মাঠ থেকে বের হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা। শোভা যাত্রাটি লাখাই আঞ্চলিক মহাসড়ক প্রদক্ষিন করে উপজেলা প্রশাসনিক চত্তরে এসে মিলিত হয়। এ সময় মঙ্গল শোভাযাত্রায় উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোর্শেদ কামল চৌধুরী, মহিলা ভাইস চেয়াম্যান ফয়জুন্নেছা বেগম, থানার অফিসার্স ইনচার্জ বজলার রহমান, দেওয়ান নুরুল ইসলাম (ওসি তদন্ত), উপজেলা বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যানবৃন্দ, প্রেসক্লাব, রিপোটার্স ইউনিটি, বিভিন্ন বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক শিক্ষাকাবৃন্দ, স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশারর মানুষ অংশ গ্রহণ করেন। পরে ছাত্র ছাত্রীদের অংশ গ্রহনে সংগীত পরিবেশনের সাথে চলে পান্তা ইলিশ ভোজন। নবীগঞ্জ ঃ নবীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গত শনিবার সকাল ৮টায় মঙ্গল শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদ বিন হসানের সভপতিত্বে এবং পজীব কর্মকর্তা শাকিল আহমদের পরিচালনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী। বক্তব্য রাখেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতাউল গনি ওসমানী, উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার পাল হিমেল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমদ মিলু, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাদেক হোসেন, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেন, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দিলারা বেগম, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি বিন্দু সুত্রধর,সাবেক সভাপতি আলী আমজাদ মিলন, শিক্ষক কাঞ্চন বনিক, আশফাক উজ্জামান চৌধুরী,যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম প্রমুখ। চুনারুঘাট ঃ গত রবিবার চুনারুঘাট পৌর শহরে বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মেলাকে ঘিরে চুনারুঘাট থানা প্রশাসনের ছিল বিশেষ নজরদারি। পৌর শহরে ৬০ জন পুলিশ সদস্য, রিজার্ভ ১২০ জনসহ ডিবি পুলিশের টহল ছিল। বৈশাখী মেলায় চুনারুঘাট উপজেলার কৃষক, শ্রমিক, চাকুরীজীবি, পেশাজীবি, ছাত্র-ছাত্রী ও যুবকদের ঢল নামে। মেলা প্রাঙ্গণে পুলিশের ৩টি কন্ট্রোল রুম বসিয়ে ও মেলার বিভিন্ন পয়েন্টে ১০টি সিসি ক্যামেরা বসিয়ে নজরদারি জোরদার করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *