১১ দিনেও উদঘাটন হয়নি সুন্নী নেতা আকল মিয়া হত্যাকান্ডের রহস্য

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চুনারুঘাটে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত ও ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব আবুল হোসেন আকল মিয়া হত্যাকান্ডের ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়েছে। গতকাল সোমবার উপজেলা সভাকক্ষে আয়োজিত আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বক্তারা বলেন, চুনারুঘাটের ইতিহাসে এমন নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনার ১১ দিন পরও রহস্য উদঘাটন এবং আসামী ধরা পড়েনি। এ সময় আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাইজার মোহাম্মদ ফারাবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান. কাজী সাফিয়া খাতুন, মেয়র নাজিম উদ্দিন. ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন খান, আবেদ হাসনাত চৌধুরী, শামছুজ্জামান শামীম, সবুজ তরফদার, আব্দুর রশিদ, রমিজ উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আলী আশরাফ, প্রেসক্লাবের সভাপতি কামরুল ইসলামসহ বিভাগীয় কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার নেতৃবৃন্দ। পরে চোরাচালান, ভোক্তা অধিকার বিষয়ে এবং এনজিও সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিজিবিসহ বিভিন্ন শ্রেণীর প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন।আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। বক্তারা বলেন, চুনারুঘাটের ইতিহাসে এমন নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনার ১১ দিন পরও রহস্য উদঘাটন এবং আসামী ধরা পড়েনি। এ সময় আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাইজার মোহাম্মদ ফারাবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান. কাজী সাফিয়া খাতুন, মেয়র নাজিম উদ্দিন. ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন খান, আবেদ হাসনাত চৌধুরী, শামছুজ্জামান শামীম, সবুজ তরফদার, আব্দুর রশিদ, রমিজ উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আলী আশরাফ, প্রেসক্লাবের সভাপতি কামরুল ইসলামসহ বিভাগীয় কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার নেতৃবৃন্দ। পরে চোরাচালান, ভোক্তা অধিকার বিষয়ে এবং এনজিও সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিজিবিসহ বিভিন্ন শ্রেণীর প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন।আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। বক্তারা বলেন, চুনারুঘাটের ইতিহাসে এমন নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনার ১১ দিন পরও রহস্য উদঘাটন এবং আসামী ধরা পড়েনি। এ সময় আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাইজার মোহাম্মদ ফারাবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান. কাজী সাফিয়া খাতুন, মেয়র নাজিম উদ্দিন. ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন খান, আবেদ হাসনাত চৌধুরী, শামছুজ্জামান শামীম, সবুজ তরফদার, আব্দুর রশিদ, রমিজ উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আলী আশরাফ, প্রেসক্লাবের সভাপতি কামরুল ইসলামসহ বিভাগীয় কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার নেতৃবৃন্দ। পরে চোরাচালান, ভোক্তা অধিকার বিষয়ে এবং এনজিও সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিজিবিসহ বিভিন্ন শ্রেণীর প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন।আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। বক্তারা বলেন, চুনারুঘাটের ইতিহাসে এমন নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনার ১১ দিন পরও রহস্য উদঘাটন এবং আসামী ধরা পড়েনি। এ সময় আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাইজার মোহাম্মদ ফারাবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান. কাজী সাফিয়া খাতুন, মেয়র নাজিম উদ্দিন. ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন খান, আবেদ হাসনাত চৌধুরী, শামছুজ্জামান শামীম, সবুজ তরফদার, আব্দুর রশিদ, রমিজ উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আলী আশরাফ, প্রেসক্লাবের সভাপতি কামরুল ইসলামসহ বিভাগীয় কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার নেতৃবৃন্দ। পরে চোরাচালান, ভোক্তা অধিকার বিষয়ে এবং এনজিও সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিজিবিসহ বিভিন্ন শ্রেণীর প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন।আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। বক্তারা বলেন, চুনারুঘাটের ইতিহাসে এমন নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনার ১১ দিন পরও রহস্য উদঘাটন এবং আসামী ধরা পড়েনি। এ সময় আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাইজার মোহাম্মদ ফারাবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান. কাজী সাফিয়া খাতুন, মেয়র নাজিম উদ্দিন. ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন খান, আবেদ হাসনাত চৌধুরী, শামছুজ্জামান শামীম, সবুজ তরফদার, আব্দুর রশিদ, রমিজ উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আলী আশরাফ, প্রেসক্লাবের সভাপতি কামরুল ইসলামসহ বিভাগীয় কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার নেতৃবৃন্দ। পরে চোরাচালান, ভোক্তা অধিকার বিষয়ে এবং এনজিও সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিজিবিসহ বিভিন্ন শ্রেণীর প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন।স্টাফ রিপোর্টার ॥ চুনারুঘাটে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত ও ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব আবুল হোসেন আকল মিয়া হত্যাকান্ডের ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়েছে। গতকাল সোমবার উপজেলা সভাকক্ষে আয়োজিত আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বক্তারা বলেন, চুনারুঘাটের ইতিহাসে এমন নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনার ১১ দিন পরও রহস্য উদঘাটন এবং আসামী ধরা পড়েনি। এ সময় আকল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার আহবান জানান বক্তারা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাইজার মোহাম্মদ ফারাবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান. কাজী সাফিয়া খাতুন, মেয়র নাজিম উদ্দিন. ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন খান, আবেদ হাসনাত চৌধুরী, শামছুজ্জামান শামীম, সবুজ তরফদার, আব্দুর রশিদ, রমিজ উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আলী আশরাফ, প্রেসক্লাবের সভাপতি কামরুল ইসলামসহ বিভাগীয় কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার নেতৃবৃন্দ। পরে চোরাচালান, ভোক্তা অধিকার বিষয়ে এবং এনজিও সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিজিবিসহ বিভিন্ন শ্রেণীর প্রতিনিধি বক্তব্য রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *